পশ্চিমবঙ্গেও লাভ জিহাদ বিরোধী আইন হবে : বিজেপির মন্ত্রী

প্রকাশিত: ৪:৩৯ পূর্বাহ্ণ, জানুয়ারি ৯, ২০২১

লাভ জিহাদ নিয়ে কিছুদিন ধরে আলোচনা চলছে ভারতজুড়ে। এর বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণাও করেছে উত্তরপ্রদেশ ও উত্তরাখণ্ডের বিজেপি সরকার। রাজ্য দুটিতে বিয়ের নামে ধর্মান্তর রোধ আইনও হয়েছে। অন্তত আরও চার রাজ্য- মধ্যপ্রদেশ, হরিয়ানা, কর্ণাটক ও আসাম রাজ্য সরকার ঘোষণা দিয়েছে যে, তারা অনুরূপ ভিনধর্মে বিয়েবিরোধী এমন আইন পাস করার পরিকল্পনা করছে।

এ পরিস্থিতিতে পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যে ক্ষমতায় এলেই ‘লাভ জিহাদ’ আইন চালু করা হবে বলে ফের হুঁশিয়ারি দিলেন বিজেপি নেতা মধ্যপ্রদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী নরোত্তম মিশ্র। উল্লেখ্য, মধ্যপ্রদেশেও পাস হয়েছে এই আইন। আর সেই প্রদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীও বাংলায় ‘লাভ জিহাদ’ বিরোধী আইন নিয়ে সরব হওয়ায় শোরগোল পড়ে গেল।

বৃহস্পতিবার পশ্চিমবঙ্গের পশ্চিম বর্ধমান জেলার দুর্গাপুরে সভা করতে গিয়েছিলেন বিজেপির এই কেন্দ্রীয় পর্যবেক্ষক। সেখানেই বক্তব্য রাখতে গিয়ে তিনি বলেন, ‘মধ্যপ্রদেশে আমরা ধর্মরক্ষার স্বার্থে ‘লাভ জিহাদ’ আইন এনেছি। আমি বলছি, বাংলায় বিজেপি ক্ষমতায় আসামাত্রই এখানেও এই আইন করা হোক, এটাই আমি চাই।’

গত মাসেও দুর্গাপুরে ‘চায়ে পে চর্চা’য় যোগ দিয়ে নরোত্তম মিশ্র জানিয়েছিলেন, এ রাজ্যে গো-সংরক্ষণ ও লাভ জিহাদ আইন চালু হবে কিনা, সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে দল। অর্থাৎ বিজেপি ক্ষমতায় এলে এ রাজ্যে অদূর ভবিষ্যতে গো-সংরক্ষণ ও লাভ জেহাদ বিরোধী আইন চালু হতেই পারে বলে আভাস আগেই দিয়েছিলেন নরোত্তম মিশ্র। এবার স্পষ্ট ভাষাতেই নিজের মনের কথা জানালেন তিনি।

গত বছরের নভেম্বরে ভারতের প্রথম রাজ্য হিসেবে উত্তরপ্রদেশ বাধ্য বা প্রতারণার মাধ্যমে ধর্মান্তরের বিরুদ্ধে আইন পাস করে। কাউকে ধর্মান্তকরণ করতে বাধ্য করা কিংবা বিয়ের মাধ্যমে ধর্মান্তরিত হতে প্ররোচিত করলে ১০ বছর পর্যন্ত কারাদণ্ডের বিধানও রয়েছে। সমালোচকরা বলছেন, এটা বিজেপি সরকারের মুসলিমবিরোধী এজেন্ডা।

আইনটিতে কোনো ধর্মের নাম না থাকলেও সমালোচকরা আইনটিকে মুসলিমবিদ্বেষী বলছে। দেশের হিন্দু নারীদের প্রেমের প্রতিশ্রুতি দিয়ে বিভ্রান্ত করে বিয়ের পর ইসলাম ধর্মে ধর্মান্তরিত করার ষড়যন্ত্র হিসেবে বর্ণনা করে একে ‘প্রেমের মাধ্যমে জিহাদ’ বা ‘লাভ জিহাদ’ বলে অভিহিত করছে কট্টর হিন্দুত্ববাদী গোষ্ঠীগুলো।